মেনু নির্বাচন করুন
ফাইল

পূর্ববর্তীর মামলার রায়

গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

চেয়ারম্যান কার্য্যলয়ঃ

৩নং বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদ

মাটিরাংগা,খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা।

সূ্ত্রঃ-স্মারক নংঃ বিইউপি/  চে মামলা নং ০৪/২০১২                                            তারিখঃ ৩০/০৩/২০১২                                

প্রতিবেদন

 

 
 

 


প্রথম পক্ষঃ                                             দ্বিতীয় পক্ষঃ

মোঃ রহিচ উদ্দীন পিতাঃ মৃত আব্দুল বারেক       ১। নুর নবী, পিতাঃ মৃত সেকান্দর আলী

সাং ১৮০নং বড়নাল, ইউনিয়নঃ৩নং বড়নাল,               সাং থৈলা পাড়া ৭নং ওয়ার্ড,

 উপজেলাঃ মাটিরাংগা ,জেলাঃ খাগড়াছড়ি।  ২। আব্দুচ সোবাহান,(বাজার চৌধুরী) পিতাঃ মৃত ইয়াছিন বেপারী

                                                  সাং পুরাতন বড়নাল,৪নং ওয়ার্ড, ইউনিয়নঃ ৩নং বড়নাল,

                                                    উপজেলাঃ মাটিরাংগা ,জেলাঃ খাগড়াছড়ি।

 

উপরোক্ত বাদী-বিবাদী গনের বিরুদ্ধে ৩নং বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদ কার্য্যালয়ে অতিরিক্ত টিলা ভূমি দখল  সংক্রান্ত বিষয়ে অভিযোগ দায়ের করে, যাহা ইউপি মামলা নং ০৪/২০১২

 

উক্ত মামলার পরিপেক্ষিতে বাদী বিবাদী কে নোটিশ যোগে হাজির করা হয়। দুই পক্ষের মৌখিক জবান বন্দি গ্রহন করা হয়। এবং দুপক্ষের কাগজ পত্র দেখা ও আলোচনা করা হয়। বিচারে এলাকার অনেক গন্যমাণ্য ব্যক্তি গন ও নালিশি জায়গার আশপার্শ্বের লোকজন  উপস্থিত ছিলেন। দুপক্ষের কথা বার্তা এবং কাগজ পত্রে দেখা যায়যে বাদি-বিবাদী  গন ছাড়া  আরো ৫জন উক্ত টিলা ভূমির মালিক দখল কার আছে, তাদের ও কাগজ পত্র আছে । উক্ত কাগজ পত্র দেখা হয়, এবং পর্য্যালচোনা করা হয়। সর্ব মোট দেখা যায় তাহারা ৮ জন মিলে অনুমান ৪০(চল্লিশ) একর টিলা ভূমি বন্দোবস্থ পাওয়ার জন্য মাননীয় জেলা প্রসাশক মহোদয়ের নিকট আবেদন করিয়াছে। এবং হেডম্যানের প্রতিবেদন সহ প্রতি জন ০৫(পাচঁ)একর করিয়া মালিক দখল দার থাকার কথা। উপস্থিত ৮ জনের মধ্যে ৬জন বলেন যে, টিলা ভূমি নেওয়ার সময় কথা ছিল যে আমরা ৮ জনে ০৫(পাচঁ) একর টিলার জন্য আবেদন করিতেছি। পরর্বতিতে সমান ভাবে নিজ নিজ অংশ বুঝিয়া নিব। কারণ এখন টিলাভূমিতে জংগল আছে, টিলা মাপা সম্ভব নয়। পরে জংগল পরিষ্কার করিয়া সমান ভাগে ভাগ করব। উপস্থিত বিচারে বাদী বিবাদী ছাড়া অন্যান্য ৫(পাঁচ) অংশিদার ও এলাকার গণ্যমাণ্য এবং জায়গার আশপার্শ্বের লোকের ভাষ্য মতে প্রতি জন ৫ একর অথবা সমান অংশের মালিক থাকিবে। কিন্তু বর্তমানে দেখা যায় বিবাদী গন জন প্রতি ৫একরের স্থলে আবেদন ও সিদ্ধান্ত বর্হিভূত অতিরিক্ত জায়গা দখলের অপচেষ্টা লিপ্ত আছে। তাই অত্র ইউনিয়ন কার্য্যালয়ে গণ্যমাণ্য ব্যাক্তি গনের আলোচনা সাপেক্ষে উক্ত ৪০(চল্লিশ)একর জায়গা ০৫(পাচঁ) একর করিয়া অথবা ৮জনের মধ্যে সমান অংশে আমিন দ্বারা পরিমাপ করিয়া দেওয়ার জন্য সিদ্ধান্ত দেন।

কিন্তু বিবাদী গন তাহাতে রাজি নয়, তাই বাদী কে উদ্বতন কতৃপক্ষ বরাবর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পরার্মশ দেওয়া হল।

 

 

 

 

 

 

গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

চেয়ারম্যান কার্য্যলয়ঃ

৩নং বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদ

মাটিরাংগা,খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা।

সূ্ত্রঃ-স্মারক নংঃ বিইউপি/  চে মামলা নং  /২০১২                                              তারিখঃ ২৭/০৫/২০১২                                

প্রতিবেদন

 

 
 

 


প্রথম পক্ষঃ                                             দ্বিতীয় পক্ষঃ

মোঃ খোকা মিয়া পিতাঃ মৃত সিরাজুল হক       ১। নুর ইসলাম সর্দার , পিতাঃ মৃত হোসেন সিয়া 

সাং পুরাতন বড়নাল, ইউনিয়নঃ৩নং বড়নাল,       সাং পুরাতন বড়নাল, ইউনিয়নঃ৩নং বড়নাল    

৯নং ওয়ার্ড উপজেলাঃ মাটিরাংগা                    ৯নং ওয়ার্ড উপজেলাঃ মাটিরাংগা

জেলাঃ খাগড়াছড়ি।                                       জেলাঃ খাগড়াছড়ি।

                                                 

 

উপরোক্ত বাদী-বিবাদী দুই জন উপরোক্ত ঠিকানার ৩নং বড়নাল ইউনিয়নের স্থায়ী বাসিন্দা। দুই পক্ষনদয়কে আমি চিনি ও জানি । দুপক্ষ কিছু খাস জায়গা নিয়ে দীর্ঘ দিন যাবত ঝগড়া বিবাদ করে আসিতেছে সামাজিক ভাবে বিভিন্ন বিচার আচার হয়েছে। কিন্তু সমাধান হয়নাই। তাই উক্ত বিষয় বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদ কর্তক স্বর জমিনে তদন্ত করে শালিশে বশা হয়। উক্ত শালিশে এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তি ও ইউপি সদস্য গন উপস্থিত ছিলেন। এলাকার লোকের স্বাক্ষীর প্রামানে দেখা যায় যে,বির্তকিত জায়গাটি বাদীর বহু বছর আগে থেকে  দখল জায়গা। পরবর্তীতে বিবাদী গন উক্ত জায়গা নিয়ে বাদীর সাতে জগড়া বিবাদ মারামারি করে বিভিন্ন প্রতারনা করে। এলাকার লোকের স্বাক্ষীর প্রামানে দেখা যায় যে,জায়গাটি বাদী খোকা মিয়ার বলে প্রমান পাওয়া যায়। তাই শালিশের মধ্য খোকা মিয়ার জায়গা বলে রায় দেওয়া হয়। কিন্তু বিবাদী উক্ত রায় মানেনা বলে উক্তি করে ছলে যায়।   

 

তাই বাদী কে উদ্বতন কতৃপক্ষ বরাবর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পরার্মশ দেওয়া হল।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শালিশি প্রতিবেদন

 

 
 

 


প্রথম পক্ষঃ                                               দ্বিতীয় পক্ষঃ

মোঃ মোঃ আবুল হাসেম পিতাঃ মৃতমোঃ নুরম্নল ইসলাম         ১।  মাহবুবুল হক পিতাঃ মুকবুল হোসেন

সাং ১৮০নং বড়নাল, ইউনিয়নঃ ৩নং বড়নাল,                             ২। মোঃ মোতালেব পিতাঃ মৃত আব্দুর রশিদ       উপজেলাঃ মাটিরাংগা ,জেলাঃ খাগড়াছড়ি ।                         সাং হাবিবমেম্বার  পাড়া ৫নং ওয়ার্ড,

 ।                                                                       ইউনিয়নঃ ৩নং বড়নাল,

                                                                 উপজেলাঃ মাটিরাংগা ,জেলাঃ খাগড়াছড়ি।

 

 

 

উপরোক্ত বাদী-বিবাদী দুই জন উপরোক্ত ঠিকানার ৩নং বড়নাল ইউনিয়নের স্থায়ী বাসিন্দা। দুই পক্ষনদয় কে আমি চিনি ও জানি । দুপক্ষ কিছু খাস জায়গা নিয়ে দীর্ঘ দিন যাবত ঝগড়া ঝাটি করে আসিতেছে। সামাজিক ভাবে বিভিন্ন বিচার আচার হয়েছে। কিন্তু সমাধান হয়নাই। তাই উক্ত বিষয় বাদী  বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদ লিখিত ভাব বিচার দেয়।  পরিষদ কর্তৃক স্বর জমিনে তদন্ত করে বিগত ১৫-০২-২০১৩ ইং তারিখে ইউনিয়ন পরিষদে শালিমের আলোজন করা হয়। উক্ত শালিশে এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তি ও ইউপি সদস্য গন উপস্থিত ছিলেন। শালিশে উভয় পÿÿর কাগজ পত্র দেখা হয়। কিন্তু বিবাদীর নিকট জমিনের কাগজ আছে কোন  টিলা ভুমির কাগজ পত্র নাই। কাগজ পত্র যাচাই করে ও স্বাক্ষীর গনের মুকাবেলায় প্রামানিত হয় যে,বির্তকিত জায়গাটি বাদী মোঃ আবুল হাসেম, মোঃ মোতালেব হোসেন ও আব্দুলন হাকিম থেকে ২০০২ সালে  ক্রয় করে বসত ঘর নির্মান করে বসত করে আসচ্ছে । পরবর্তীতে বিবাদী গন ২০০৯ সালে উক্ত জায়গার পার্শ্বে কিছু ধান্য জমিন ক্রয় করে। বিবাদী মাহবুবুল হক জমির সাথে তাহার ২০ শতক টিলা জায়গা আছে বলে দাবি করে । বিবাদী  মাহবুবুল হক বাদি হাসেম মিয়া কে ২০ শতক জায়গা ছেড়ে দিতে বলে হাসেম মিয়া না দিলে  জোর করে ভিবিন্ন প্রকার গাছ কেটে পেলে এবং জায়গা দখেলের চেষ্টাকরে । এই নিয়ে বাদীর সাথে জগড়া বিবাদ মারামারি করে বিভিন্ন প্রত্যারনা করে। এলাকার লোকের স্বাক্ষীর প্রামানে দেখা যায় যে,জায়গাটি বাদী মোঃ হাসেম মিয়া বলে  প্রমান পাওয়া যায়। তাই শালিশের মাধ্যমে হাসেম মিয়ার জায়গা বলে রায় দেওয়া হয়। কিন্তু বিবাদী উক্ত রায় মানেনা বলে উক্তি করে ছলে যায়।   

 

তাই বাদী কে উদ্বর্তন কতৃপক্ষ বরাবর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পরার্মশ দেওয়া হল।

 

 

 

 

 

 

 

গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

চেয়ারম্যান কার্য্যলয়ঃ

৩নং বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদ

মাটিরাংগা,খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা।

সূ্ত্রঃ-স্মারক নংঃ বিইউপি/  চে মামলা নং  /২০১৩৪                                        তারিখঃ ০২/০৪/২০১৪ইং

 

প্রতিবেদন

 

 
 

 


প্রথম পক্ষঃ                                                     দ্বিতীয় পক্ষঃ

১। আলী মিয়া  পিতাঃ মৃত আলী আহাম্মদ               ১। মুক্তুল হোসেন , পিতাঃ মৃত আব্দুর রশিদ

সাং আলেকচেয়ারম্যান পাড়া, ইউনিয়নঃ ৩নং বড়নাল,২। মোঃ রিপন পিতা মুক্তুল হোসেন    

৪নং ওয়ার্ড উপজেলাঃ মাটিরাংগা                         ৩। মোঃ খোকন (চুট্র্ু পিতা মুক্তুল হোসেন)            

জেলাঃ খাগড়াছড়ি।                                    উভয় সাং বদু মেম্বার পাড়া , ইউনিয়নঃ ৩নং           

                                                            ৪নং ওয়ার্ড উপজেলাঃ মাটিরাংগা                    

                                                            জেলাঃ খাগড়াছড়ি।

 

বাদীঃ আলী মিয়া  পিতাঃ মৃত আলী আহাম্মদ বিবাদী বিরম্নদ্ধে  বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদ কার্যলয়ে জায়গা সংক্রামত্ম বিষয়ে লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগের পেÿÿতে বাদি ও বিবাদীকে নোটিশের মাধ্যমে হাজির করা হয়। এবং উভয় পÿদয়ের কথা শুনা হয় । উপস্থিত ইউপি সদস্য ও গন্যমান্য এবং স্থানীয় বাসিন্দারের জবান বন্দিতে যানাযায় যে, বাদি জনাব মোঃ আলী মিয়া বির্তকিত জায়াগ দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে পুকুর খনন করে মাছ ছাষ করে আসছেন এবং উক্ত জায়গা তাহার বলে প্রমান মিলে । তাই বিবাদীকে জোরদখল থেকে সরে যাওয়ার জন্য আদেশ দেওয়া হয়।  বিবাদী মেনে নেয় এবং বিবাদী এই বির্তকত জায়গাতে যাবেনা বলে একটি অংঙ্গিকার নামা হয়। কিছু দিন পর বিবাদীগন পুনরায় জায়াদখলের চেষ্টাকরলে তাকে পুনরায় বাদা দেয়াওয়া হয়। বিবাদীগন পিতা ও পুত্র প্রভাব শালি লোক তাই তারা আইন ও বিচারকে অমান্য করে যাচ্ছে । বর্তমানে তাহারা যেহেতু পুনরায় জায়গা ও পুকুর দখলের চেষ্টা করছে ।

 

তাই বাদী কে উদ্বর্তন কতৃপক্ষ বরাবর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পরার্মশ ও প্রতিবেদন দেওয়া হল।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

চেয়ারম্যান কার্য্যলয়ঃ

৩নং বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদ

মাটিরাংগা,খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা।

সূ্ত্রঃ-স্মারক নংঃ বিইউপি/  চে মামলা নং  /২০১৪                                          তারিখঃ ১০/০৮/২০১৪ইং

প্রতিবেদন

 

 
 

 


প্রথম পক্ষঃ                                                     দ্বিতীয় পক্ষঃ

১। হারম্নন  মিয়া  পিতাঃ মৃত লুৎফুর রহমান           ১। আমিনুর রহমান , পিতাঃ মৃত লুৎফুর রহমান         

সাং ভুট্রো পাড়া, ইউনিয়নঃ ৩নং বড়নাল,                         উভয় সাং ভুট্রো পাড়া , ইউনিয়নঃ ৩নং           

৪নং ওয়ার্ড উপজেলাঃ মাটিরাংগা                                   ৪নং ওয়ার্ড, উপজেলাঃ মাটিরাংগা           

জেলাঃ খাগড়াছড়ি।                                                     জেলাঃ খাগড়াছড়ি।

                                                                               

বাদীঃ হারম্নন মিয়া পিতাঃ মৃত লুৎফুর রহমান সাং ভুট্রো পাড়া, ইউনিয়নঃ ৩নং বড়নাল,                         সে তার ভাই বিবাদী আমিনুর রহমানের বিরম্নদ্ধে  জায়গা জমিন  সংক্রামত্ম বিষয়ে অত্র পরিষদ কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগের পেÿÿতে বাদি ও বিবাদীকে নোটিশের মাধ্যমে হাজির করা হয়। এবং উভয় পÿদয়ের কথা শুনা হয় । উপস্থিত ইউপি সদস্য ও গন্যমান্য এবং স্থানীয় বাসিন্দাদের জবান বন্দিতে যানা যায় যে, বাদি ও বিবাদী তাহারা পাঁচ ভাই বোন। তাহাদের পিতা মৃত্যুর পূর্বে জোত এবং খাস মিলে ৪একর ৮০শতক জমি রেখে যায়। পিতা থাকা কালে উক্ত জায়গা গুলো সাদা কাগজে উপ জাতিদের থেকে ক্রয় করেন। কিন্তু রেজিষ্টারী করতে পারেননি। এরি মধ্যে দুই বোনের অংশ এবং বিবাদী  ৫৭ শতক জায়গা বাদির নিকট ১৯৮৬ সালে বিক্রি করেন। এবং তাহাদের ছোট ভাই মোঃ শফিকের অংশ ৫৭ শতক জমিন বিবাদী আমিনুর রহমান প্রয় ১৫ বৎসর পূর্বে ক্রয় করে এবং বিবাদী তাহার মা হতে ২০শত জায়গা ক্রয়করে এবং তার মা বিবাদীকে ২০শতক জায়গা দানকরে বিবাদীর মোট ১একর ৪৩ শতক জায়গা পায় । তাহাদের  পিতা মৃত্যূর পর বাদি উপজাতিদের সাথে হাত করে হেডম্যানের সহযোগীতায় তাহার নামে পুরোজায়গা রেজিষ্টারী করে পেলে। বিবাদী জামেত্ম পেরে এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের জানান । গন্যমান্য উভয় পÿকে ডেকে বিচারে বসে । বাদি যে পুরোজায়গা রেজিষ্টারী করে পেলেছে তা শিকার করেন। বিচারে বিবাদী ক্রয়কৃত ছোট ভাইয়ের অংশ এবং মায়ের দেওয়া অংশ সহ তা রেজিষ্টারীর মাধ্যেমে বিবাদীকে ১১৪ শতক জায়গা দিয়ে দেওয়ার জন্য সিদ্ধামত্ম হয়। আর বাকি খাস জায়গা যে টুকু আছে তাহা সরকারী আমিন ধারা পরিমাপ করে  সমান ভাগে সকল ওয়ারিশ গন ভাগকরার সিদ্ধামত্ম হয়। কিন্তু বাদী তাহা মানে নাই জবান বন্ধিতে জানাযায়। পরবর্তীতে খাস জায়গা নিয়ে জগড়াজাটি হয়ে অত্র ইউপি কার্যালয়ে  অভিযোগের পেÿÿতে আমরা উইপি সদস্য ও স্থানীয় মৌজার হেডম্যান সহ স্বর জমিনে তদমত্ম করে দেখা যায় বিবাদীকে ১একর ৪৩ শতক  জায়গা থেকে ৯৪ শতক জায়গা দেয়। বিবাদীকে ২০শতক জায়গা কম দেয়।  বিবাদী খাস ২৪ শতক জায়গা পায় কিমত্মু পারিবারীক শামিত্ম স্বার্থে বিবাদীকে ১০ শতক জায়গা কম নেওয়ার জন্য বলা হয়। কিমত্মু বিবাদী মানে নাই বিবাদী বলে আমি পূর্বে আমাকে ২০শতক কম দেয় এখন খাস জমিন ২০ শতক পাব কেন আমি ১০ শতক জায়গা নেব। তাহারা না মানায় অভিযোগটি নিষপ্তি করা যায়নি।

 

তাই ভবিষতে এই বিষয় নিয়ে উভয় পÿ জগড়া না করে আইন শৃংখলার অবনতি না ঘঠায় উভয় পÿকে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পরার্মশ দেওয়া হল।

 

 

 

 

গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

চেয়ারম্যান কার্য্যলয়ঃ

৩নং বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদ

মাটিরাংগা,খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা।

সূ্ত্রঃ-স্মারক নংঃ বিইউপি/  চে মামলা নং  /২০১৪                                          তারিখঃ ১৬/০৮/২০১৪ইং

 

 

প্রতিবেদন

 

 
 

 

 


প্রথম পক্ষঃ                                                     দ্বিতীয় পক্ষঃ

১। ছোট্রু  মিয়া  পিতাঃ মৃত এয়ার আহাম্মদ              ১। রফিক মিয়া , পিতাঃ ধন মিয়া         

সাং ডাকবাংলা পাড়া, ইউনিয়নঃ ৩নং বড়নাল,            সাং ডাকবাংলা পাড়া , ইউনিয়নঃ ৩নং           

 উপজেলাঃ মাটিরাংগা, জেলাঃ খাগড়াছড়ি।              উপজেলাঃ মাটিরাংগা   জেলাঃ খাগড়াছড়ি।        

                                                                              

                                                                               

বাদীঃ ছোট্রু  মিয়া  পিতাঃ মৃত এয়ার আহাম্মদ সাং ডাকবাংলা , ইউনিয়নঃ ৩নং বড়নাল,                         সে বিবাদী বিরম্নদ্ধে  টাকা পাওনা  সংক্রামত্ম বিষয়ে অত্র পরিষদ কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগের পেÿÿতে বাদি ও বিবাদীকে নোটিশের মাধ্যমে হাজির করা হয়। এবং উভয় পÿদয়ের কথা শুনা হয় । উভয়ের কথায় জামেত্ম পারলাম যে বিবাদী বাদির নিকট হতে ৪০০০০(চলিস্নশ হাজার ) টাকা লাভের উপরে নেয়। কথা চিল প্রতিমাসে ১০০০( একহাজর ) টাকা করে লাভ

 

তাই ভবিষতে এই বিষয় নিয়ে উভয় পÿ জগড়া না করে আইন শৃংখলার অবনতি না ঘঠায় উভয় পÿকে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পরার্মশ দেওয়া হল।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

অঙ্গিকার নামা

 

প্রথম পক্ষঃ                                                     দ্বিতীয় পক্ষঃ

১। আজাহার হোসেন  পিতাঃ আবু সুফিয়ান             ১। লাকী  , স্বামী আব্দুর রাজ্জাক         

সাং ১৮২নং তৈলাফাং, ইউনিয়নঃ ৩নং বড়নাল,         ২। আয়েশা খাতুন পিতাঃ আব্দুর রাজ্জাক         

 উপজেলাঃ মাটিরাংগা, জেলাঃ খাগড়াছড়ি।             ৩। আব্দুর রাজ্জক পিতাঃ আমান উল্যা

                                          ৪। সাইফুল ইসলাম পিতাঃ মোঃ হাসেম

                                                                      সাং ১৮২ নং তৈলাফাং পাড়া , ইউনিয়নঃ ৩নং           

                                                                   উপজেলাঃ মাটিরাংগা   জেলাঃ খাগড়াছড়ি। 

      

আমরা প্রথম পÿ ও দ্বিতীয় পÿ বসত বাড়ির সিমানা নিয়ে ঝগড়াজাটি হয়। জগড়ার সময় প্রথম পÿ আগাত প্রপ্ত হয়। এই বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান সাহেব কে জানালে তিনি উভয় পÿকে বির্তকৃত সিমানার স্থলে হাজির করেন। এবং স্থানীয় গন্যমান্য সহ সিমানা নির্ধারণ করেদেন                    

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার

চেয়ারম্যান কার্য্যলয়ঃ

৩নং বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদ

মাটিরাংগা,খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা।

সূ্ত্রঃ-স্মারক নংঃ বিইউপি/  চে মামলা নং  /২০১৫                                                       তারিখঃ ১০/০৩/২০১৫ইং

 

 

প্রতিবেদন

 

 
 

 

 


প্রথম পক্ষঃ                                                     দ্বিতীয় পক্ষঃ

মোঃ শাজাহান মাষ্টার , পিতাঃ ওসমান গনি           আমিনুর রহমান   পিতাঃ আব্দুল মালেক

সাং বড়নাল বাজার এলাকা , ইউনিয়নঃ ৩নং          সাং টাক্ক মুসলিম পাড়া, ইউনিয়নঃ ৩নং বড়নাল,           

 উপজেলাঃ মাটিরাংগা, জেলাঃ খাগড়াছড়ি।          উপজেলাঃ সাং টাক্ক মুসলিম পাড়া, ইউনিয়নঃ ৩নং বড়নাল,           

মাটিরাংগা   জেলাঃ খাগড়াছড়ি।        

                                                                              

                                                                               

বাদীঃ শাজাহান মাষ্টার, সে বিবাদী আমিনুর রহমানের বিরম্নদ্ধে  টাকা পাওনা  সংক্রামত্ম বিষয়ে অত্র পরিষদ কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগের পেÿÿতে বাদি ও বিবাদীকে নোটিশের মাধ্যমে হাজির করা হয়। এবং উভয় পÿদয়ের কথা শুনা হয় । উভয়ের কথায় জামেত্ম পারলাম যে বাদির বিবাদীর নিকট ৩-৪ বছর পূর্বে একটি গুচ্ছু গ

ফাইল

Rohice Uddin.doc Rohice Uddin.doc
4_6.docx 4_6.docx


Share with :

Facebook Twitter